স্ত্রীকে তিন তালাক,শাশুড়িকে ধারালো অস্ত্রের কোপ দিয়ে পলাতক স্বামী

হক জাফর ইমাম, মালদা:স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়েছে স্বামী। তারই প্রতিবাদে স্ত্রী পুলিশ ও আইনজীবীর দ্বারস্থ হওয়ায় ধারাল অস্ত্র দিয়ে স্ত্রী ও তাঁর মাকে কুপিয়ে খুনের চেষ্টা করে স্বামী জাহিরুল ইসলাম। ঘটনায় মারাত্মক জখম হন শাশুড়ি গুলমোহর বিবি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করা হয় মালদা মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে। ঘটনায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে স্থানীয় থানায়। তারপর থেকেই পলাতক স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা।

পুলিশ জানিয়েছে, পাঁচ বছর আগে জাহিরুলের সঙ্গে বিয়ে হয় রোশনারা বিবির। বছরখানেক পর তাদের একটি সন্তানও হয়। অভিযোগ, বেশ কিছুদিন ধরে স্বামীর সঙ্গে বনিবনা হচ্ছিল না রোশনারার। এরই মধ্যে অন্য এক মহিলার সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক গড়ে ওঠে জাহিরুলের। প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে মারধোর করে স্বামী। একদিন অশান্তি চরমে উঠলে স্ত্রীকে তালাক দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেন জাহিরুল। রোশনারা বাপেরবাড়ি ফিরে এলেও ছেলেকে আনতে পারেননি। কারণ ছেলেকে ঘরে আটকে রেখেছিল জাহিরুল।

পুরো ঘটনাটি জানিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন রোশানারা। আইনজীবীর সঙ্গেও যোগাযোগ করেন তিনি। এরপরই রবিবার সকালে জাহিরুল ধারাল অস্ত্র নিয়ে চড়াও হন রোশানারার বাড়ি। শাশুড়ি গুলমোহর বিবিকে সামনে দেখে হাসুয়া দিয়ে কোপাতে শুরু করে। রোশানারা বাধা দিতে গেলে তাঁর হাতেও আঘাত লাগে। তাঁদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এলে পালিয়ে যায় জাহিরুল। দু’জনকে নিয়ে যাওয়া হয় প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। রোশানারা ছাড়া পেয়ে গেলেও গুলমোহরকে নিয়ে যাওয়া হয় মালদা মেডিক্যাল কলেজ এন্ড হাসপাতাল। ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে মালদা পুকুরিয়া থানায়।