প্রথমবারের মতো আকাশে উড়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিমান। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মোহাভি মরুভূমি থেকে বিমানটি আকাশে পাখা মেলেছে।

মাইক্রোসফটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত পল অ্যালেনের কোম্পানি স্ট্রাটোলঞ্চ এই বিমানটি তৈরি করেছে। সাদা এই বিমানটির দুই পাখার দৈর্ঘ্য একটি আমেরিকান ফুটবল মাঠের সমান। দুই ফিউজেলাজের বিমানটি চলে ছয়টি ইঞ্জিনের শক্তিতে। এটির নাম রাখা হয়েছে ‘রক’।

শনিবার সকালে এটি মোহাভি মরুভূমির একটি বিমান ঘাঁটি থেকে আকাশে উড়ে। দু’ঘন্টার ফ্লাইট শেষে এটি আবার বিমান ঘাঁটিতে ফিরে আসে।

এই বিমানটি তৈরি করা হয়েছে পৃথিবীর কক্ষপথে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের জন্য। এখন স্যাটেলাইট বসানো হয় রকেট দিয়ে উৎক্ষেপনের মাধ্যমে। কিন্তু স্ট্রাটোলঞ্চের পরিকল্পনা হচ্ছে, এই বিশাল উড়োজাহাজে করে স্যাটেলাইটকে প্রায় দশ কিলোমিটার উঁচুতে তুলে তারপর পৃথিবীর কক্ষপথে ছেড়ে দেয়া হবে।

এর ফলে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের খরচ অনেক কমে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে। শনিবারের পরীক্ষামূলক ফ্লাইটে বিমানটির গতি ছিল ঘন্টায় সর্বোচ্চ ১৮৯ মাইল এবং এটি ১৭ হাজার ফুট উচ্চতায় পৌঁছায়।

২০২০ সাল নাগাদ স্ট্রাটোলঞ্চ এই বিমানটি ব্যবহার করে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করতে চায়। বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিমানের পাইলট ইভান থমাস জানিয়েছেন, তারা যে রকম ধারণা করেছিলেন, সেভাবেই শেষ হয়েছে প্রথম ফ্লাইটটি। তিনি তার অভিজ্ঞতাকে চমৎকার বলে বর্ণনা করেছেন।

স্ট্রাটোলঞ্চ তাদের এই বিমানকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বলে দাবি করছে বিমানটির বৃহদাকার পাখার হিসাব করে। কিন্তু বিমানের স্বাভাবিক দৈর্ঘ্যের বিবেচনায় এর চেয়ে বড় অনেক বিমান রয়েছে।