কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার যে খবর প্রকাশিত হয়েছে, তা একেবারেই ভিত্তিহীন,স্পষ্ট টুইট কেন্দ্রের

0

সমাচার ডেস্ক: কিছুদিন ধরেই বাংলার কিছু সংবাদমাধ্যম প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে যে কেন্দ্রে নির্দেশিকা বিদ্যালয় খোলার ব্যাপারে কিন্তু এবার সেই সমস্ত বিভ্রান্তি দূর করে টুইট করল কেন্দ্র যেখানে পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে এমন কোনো সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়নি।

এই প্রতিকূল পরিস্থিতিতে বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার খবর প্রকাশিত হওয়ায় বিড়ম্বনায় পড়ে কেন্দ্র। তাই মঙ্গলবার কেন্দ্রে তরফে রীতিমত টুইট করে জানিয়ে দেওয়া হয়, কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার যে খবর প্রকাশিত হয়েছে, তা একেবারেই ভিত্তিহীন। যেখানে একদিকে লকডাউন বৃদ্ধি হয়ে চলেছে অনবরত।

সেখানেই সামাজিক দূরত্ব রক্ষার ক্ষেত্রে বিদ্যালয়গুলির এক গুরুত্বপূর্ণ স্পর্শ কাতর জায়গা। যেখানে নির্ভর করছে লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি শিশুর ভবিষ্যৎ। সে ব্যাপারে উচ্চ শিক্ষা দপ্তর এবং মানব সম্পদ উন্নয়ন ভাবনা-চিন্তা করে ফেলবেন তা বোঝা যাচ্ছে কেন্দ্রের টুইটে।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় দেশজুড়ে লকডাউন কার্যকর হওয়ায় সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মার্চের মাঝামাঝি থেকে বন্ধ রয়েছে। বেশকিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অবশ্য প্রধানমন্ত্রী ২৪ মার্চ লকডাউন ১.০ ঘোষণা করার পর বন্ধ করা হয়। এর মাঝেই লকডাউন 3 ও 4 আসার ফলে অনেকটাই বিপর্যস্ত হয়েছে পড়াশোনার মাধ্যমগুলো। কিন্তু জীবন-জীবিকা এ প্রশ্নে দ্বিধাগ্রস্থ সাধারণ মানুষ। অভিভাবকরাও তাদের শিশুদের এই মুহূর্তে বিদ্যালয়মুখী করতে চান না। উঠে এসেছে বিভিন্ন অভিভাবকদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনায়।

বরং লকডাউনের মেয়াদ বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যেই দেশে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লক্ষ ছাড়িয়েছে। করোনায় থাবায় প্রাণ হারিয়েছেন চার হাজারেরও বেশি মানুষ। তো মানে পশ্চিমবঙ্গ সরকার যে খুব সন্তর্পনে এই বিষয়টিকে মানবিকতার সাথে দেখছেন তা বলাই বাহুল্য। এবার রাজ্য কী সিদ্ধান্ত নেয় এবং সমস্ত সমীক্ষা রিপোর্টে ভয়াবহতার কথা উঠে এসেছে তাকে সামনে রেখে কি সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে সেই দিকেই তাকিয়ে আছে আপামর শিক্ষা প্রেমী মানুষরা।