কানপুরে দুষ্কৃতীদের গুলিতে শহীদ বাবলু কুমার গ্রামের প্রথম সরকারী চাকরী পেয়েছিলেন !

0

সমাচার ডেস্ক : কানপুরের এনকাউন্টারে ২২ বছর বয়সের একজন‌ কনস্টেবল বাবলু কুমার গতকাল নিহত হয়েছেন। তিনি একটি দলিত পরিবার থেকে উঠে আসা সন্তান। তার গ্রামে তিনি ই প্রথম ছেলে যিনি সরকারী চাকরি পেয়ে ছিলেন।

তার পরিবারের অন্যান্য ভাই-বোনরা যখন অভাবের তাড়নায় পড়ে দৈনিক মজুরির কাজে গ্রহণ করতে বাধ্য হয়েছিল। সেই মুহূর্তে বাবলু কুমার কে তার ছোট কাকা দত্তক নেন। বাবলুর ছোট কাকা ছোটে লাল ছিলেন একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী।

বাবলু কুমাররা নজন ভাই বোন। বাবলু কুমারের পাঁচজন বোন আছে।বাবলুর সব বোনরাই এখন বিবাহিত।বাবলুর বড় দুই বড় ভাই দীনেশ ও বান্টু যখন দৈনিক মজুরীর কাজ করতো ছোট ভাই উমেশ সবেমাত্র ইন্টারমিডিয়েট সাফ করেছে সেইসময় বাবলু পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেয়। বাবলুর বাবা মহাবীর ও একজন দৈনিক মজুর। এই পরিবারে বাবলুই ছিলেন একমাত্র সরকারি চাকুরে।

বাবলু পুলিশ বাহিনীতে যোগদানের পরেই ঐ পরিবারে পাকা বাড়ি নির্মাণ করা হয়।তাই বাবলুর পুলিশে যোগদান সেই পরিবারের কাছে এবং পুরো গ্রামের কাছেও ছিল গর্বের বিষয়।কারণ বাবলু ই ছিলো সেই গ্রামের প্রথম ছেলে যে সরকারি চাকরি পায়।

বাবলুর মৃত্যুর খবর শোনার পর সেই গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা,তার ছোটকাকা ( যিনি বাবলুকে মানুষকে মানুষ করেছিলেন)ও বাবলুর আর ভাই-বোনরা শোকে মূহ্যমান হয়ে আছেন।