নিজের শিক্ষার জন্যে সঞ্চিত ৫ লাখ টাকা গরিবদের দান করলেন সেলুন মালিকের মেয়ে, পুরস্কৃত করল রাষ্ট্রসংঘ

0

সমাচার ডেস্ক: করোনা ভাইরাস আমদের শিখিয়ে দিয়েছে কিভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে হয়।এই মহামারীর জন্য আজ দেশে লকডাউন । এর ফলে অনেক মানুষ কাজ হারিয়ে বাড়িতে বসে আছে ‌ । তাই দুবেলা দুমুঠো খাওয়ার ব্যাবস্থা করা অসম্ভব হয়ে যাচ্ছে । তবে এই খারাপ পরিস্থিতিতে এগিয়ে এসেছে অনেকেই । নিজের মতো করে সাহায্য করছে । গ্রাম বাংলায় একটা প্রবাদ আছে শুধু ধন নয় সাহায্য করতে গেলে মনের প্রয়োজন । জলজ্যান্ত উদাহরণ তামিলনাড়ুর মাদুরাইয়ে এক কিশোরী (M Nethra)।

তাঁর বাবা সেলুন চালিয়ে পরিবার চালায় , তাঁর বাবার সারাজীবনের জমানো ৫ লাখ টাকা দরিদ্রদের দিয়ে সাহায্য করলেন এম নেথ্রা নামের ওই কিশোরী।এই অর্থ তার বাবা জমিয়ে ছিলেন নিজের উচ্চ পড়াশোনা ও বিয়ে দেওয়ার জন্য। ওই কিশোরীকে “গুডউইল অ্যাম্বাসাডর টু দ্য পুওর” বা “দরিদ্রদের শুভেচ্ছাদূত” হিসাবে নিয়োগ করেছে রাষ্ট্রসংঘ।

১৩ বছরের এম নেথ্রার এধরনের পদক্ষেপের তারিফ করছেন রাষ্ট্রসংঘ। সামান্য একটি সেলুনের মালিক হয়ে নিজের শিক্ষার জন্যে সঞ্চিত অর্থ পুরোটাই ঢেলে দিয়েছেন গরিবদের পাশে থাকার জন্যে । এমনকি ইউনাইটেড নেশনস অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পিস (UNADAP) -এর অ্যাম্বাসাডর হিসাবে নিয়োগ করেছে তারা।

এমনকি দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কিছু দিন আগে মেয়েটির প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেছেন মাদুরাইকে নিয়ে গর্বিত।রাষ্ট্রসংঘের নেতাদের সঙ্গে দেখা করার এবং দরিদ্রদের সাহায্যে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার সুযোগ পেয়ে আমি আনন্দিত।

 কয়েক দিন আগে “মন কি বাত” এ প্রধানমন্ত্রীও (নরেন্দ্র মোদি) মেয়েটির প্রশংসা করেছেন। তিনিও মাদুরাইকে নিয়ে গর্বিত। রাষ্ট্রসংঘের নেতাদের সঙ্গে দেখা করার এবং দরিদ্রদের সাহায্যে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার সুযোগ পেয়ে আমি আনন্দিত”, বলেন তিনি।