লকডাউনে মানুষের খিদা মেটালো Parle-G , আট দশকের মধ্যে রেকর্ড বিক্রি কোম্পানির !

0

সমাচার ডেস্কঃ- আটদর্শকে যা হয়নি তা ঘটছে লকডাউনে । গরিবের ক্ষুধা মিটিয়ে রেকর্ড অঙ্কে বিক্রি হলো সংস্থার । অর্থঅঙ্কে লকডাউনে সাধারণ মানুষের জীবনযাপনে এক মাত্র সঙ্গী ছিলো পার্লে-জি (Parle-G) ।  

 

অর্থমন্দায় সারাবিশ্ব , প্রায় সব ব্যবসাতে গ্রহণ লাগিয়েছে মারণ করোনা । কর্মহীন বহু কর্মী থেকে বহু শ্রমিক । কিন্তু এই মন্দায় ব্যতিক্রমী চিত্র ঘটে গেলে একটি সংস্থা সাথে । সে নাম হলো , জনপ্রিয় পার্লে বিস্কুট । দাম নাগালে তাই লকডাউনে সাধারণ সুস্বাদু পেট ভরার সম্পদ । 

কতটা আয় করেছে তা প্রকাশ করেনি সংস্থা । সঃস্থা জানিয়েছে  গত আট দশকে হয়নি তা লকডাউনে ঘটেগেছে । তাদের কথায় , “আমরা প্রায় ৫ শতাংশ (সব প্রোডাক্ট মিলিয়ে) মার্কেট শেয়ার বাড়িয়েছি। আর তার মধ্যে ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ বৃদ্ধি হয়েছে পার্লে-জির বিক্রি থেকে। যা সত্যিই অভাবনীয়।”

কীভাবে সম্ভব হল এটা? এতে সংস্থার দাবি, লকডাউনে মানুষের মধ্যে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী মজুত রাখার প্রবণতা দেখা দিয়েছিল। ব্র্যান্ড পছন্দ করার বিশেষ সুযোগ ছিল না। যখন যা পেয়েছেন, তাই কিনেছেন। তাই এই কোম্পানির বিস্কুটের সরবরাহ আগের তুলনায় বেড়েছে। লকডাউনের মধ্যে বিস্কুট সাপ্লাইয়ে কোনও ঘাটতি রাখেনি কোম্পানি । প্রায় সবাই কারখানাই সচল ছিল লকডাউনেও । সেই কারণেই নয়া রেকর্ড গড়তে পেরেছে তারা।

এছাড়াও  , বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠন এই বিস্কুট প্রচুর পরিমাণে কিনেছেন । অনেকের কাছেই খাবার বলতে ঝোলায় শুধু পার্লে-জিই ছিল। তাই এই লকডাউনে করোনাই পার্লে-জির ( Parle-G ) কাছে ‘আশীর্বাদ’ হয়ে ওঠে ।