কুকুর মরে গেলেও এক সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় CBI তদন্তের দাবি জানাতেন : দিলীপ ঘোষ

0

সমাচার ডেস্ক: বিজেপির দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যুর পর থেকেই রাজনৈতিক বাকযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। বিজেপির বিধায়ক ছিলেন দেবেন্দ্রনাথ রায়।তার মৃত্যুর পর থেকেই ক্রমশ উত্তেজনা ছড়াচ্ছে।বিজেপি আর তৃণমূল একে অপরকে আক্রমণ করছেন।

এইদিন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ তৃণমূলকে অতীত ইতিহাস স্মরণ করালেন। তৃণমূলকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন- “কুকুর মারা গেলেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একসময় সি বি আই তদন্ত চাইতেন।” এরপরই অতীতের রিজওয়ানুর কাণ্ডের প্রসঙ্গ তুলে রাজ্য সরকারকে আর একহাত নিলেন দিলীপ ঘোষ।

গতকাল নিজের বাসভবনে বিজেপি সভাপতি কড়া ভাষায় তৃণমূলের উদ্দেশ্যে বলেন-“একটা কুকুর মরে গেলেও মমতা বন্দোপাধ্যায় তখন রাস্তায় নেমে সিবিআই তদন্ত চাইতেন। বাবি হামের বোধহয় স্মৃতিশক্তি হারিয়ে গেছে তাই তিনি অতীতের কথাগুলো ভুলে গেছেন। এক একটা সামান্য বিষয় নিয়ে কী কী তুলকালাম করা হয়েছে।”

এরপর রিজওয়ানুর রহমানের মৃত্যুর প্রসঙ্গ তুলে বলেন- “রিজওয়ানুর রহমান ট্রেন থেকে পড়ে মারা যান। সেটাকে বলা হলো হত্যা… আত্মহত্যা…। এরপর সেটাকে হত্যা বলে পুরো কলকাতা দিনের পর দিন বন্ধ করে রেখেছিলেন। মৃতদেহ নিয়ে রাজনীতি করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় এসেছেন। যে লাশ নিয়ে রাজনীতি করেছেন তার দোষীরা আজও সাজা পায়নি।

তৃণমুল এর পাল্টা জবাব,-“যারা এইসব নিয়ে চিরকাল রাজনীতি করে এসেছেন, তাদের মুখে এইসব কথা শোভা পায় না। আমরা ন্যায় চাইছি মানুষও চাইছে।এই সরকারকে আর কোন মানুষ বিশ্বাস করে না।”

উল্লেখ্য গত সোমবার উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদ বিজেপি বিধায়কের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হওয়ার পর থেকেই বিজেপি তৃণমূলকে এর পিছনে দায়ী করেন। বিজেপির দাবি খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে দেবেন বাবুকে। এ কাজ করা করেছে তৃণমূলের পোষা গুন্ডারা। অপরদিকে তৃণমূলের পুরমন্ত্রী ফিরহাজ হাকিম বলেন-” দেবেন্দ্রনাথ রায় আত্মঘাতী হয়েছেন। লাশ নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি করছে বিজেপি।”