দিল্লির গোষ্ঠী সংঘর্ষে চার্জশিটে নিজামুদ্দিন মারকাজ এর নাম, সন্দেহভাজন মৌলানা সাদ

0

রাজীব ঘোষঃ-উত্তর পূর্ব দিল্লির গোষ্ঠী সংঘর্ষের ঘটনায় দিল্লি পুলিশের পক্ষ থেকে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। সেই চার্জশিটে অন্যতম চক্রি হিসেবে নিজামুদ্দিন মারকাজ এর নাম উঠে এসেছে। নিজামুদ্দিন মারকাজের মৌলভী মওলানা সাদ সন্দেহভাজনের তালিকায় রয়েছে। দিল্লি পুলিশের সিট যে চার্জশিট দাখিল করেছে সেখানে বলা হয়েছে, উত্তর পূর্ব দিল্লির হিংসার ঘটনায় পাবলিক স্কুল এর মালিক ফয়জল ফারুক এর ভূমিকা রয়েছে। নিজামুদ্দিন মারকাজের মাওলানা সাদ এর সঙ্গে ফারুকের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। নিজামুদ্দিন মারকাজের আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত বিষয়টি সম্পূর্ণ দেখত ফয়জল ফারুক। মৌলানা সাদ এর এক আত্মীয়ের সঙ্গে ফয়জল ফারুকের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। হিংসার দিন ফারুক মৌলানা সাদ এর ওই আত্মীয়র সঙ্গে ফোনে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছিলেন।

চার্জশিটে আরো উল্লেখ রয়েছে, দিল্লির হিংসার ঘটনার প্রায় মাস খানেক আগে ফয়জল ফারুক যমুনা বিহার সংলগ্ন এলাকায় কোটি টাকার সম্পত্তি কিনেছিলেন। মারকাজ নিজামুদ্দিন এর টাকা দিল্লির হিংসার ঘটনায় ব্যবহার করা হয়েছে কিনা সেই বিষয়টিও দিল্লি পুলিশের সিট খতিয়ে দেখছে। চার্জশিটে বলা হয়েছে, দিল্লির হিংসার ঘটনায় কয়েকটি সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন ফয়জল ফারুক। দেওবন্দের বেশ কয়েকজন ধর্মগুরুর সঙ্গেও তার কথা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। উত্তর পূর্ব দিল্লির এই হিংসার ঘটনায় ফয়জল ফারুককে দিল্লি পুলিশ অন্যতম ষড়যন্ত্রী হিসেবে সন্দেহের তালিকায় রেখেছে।

পাবলিক স্কুলের ম্যানেজারের অভিযোগের ভিত্তিতে দিল্লি পুলিশ জানতে পেরেছে, হিংসার দিন পাবলিক স্কুলের ছাদে অভিযুক্তরা এসিডের বোতল,ইট ও অন্যান্য অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে জড়ো হয়েছিলেন। যার ফলে দিল্লি হিংসার ঘটনায় এত সম্পত্তি হানি এবং প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। নামি স্কুল রাজধানী পাবলিক স্কুল এর মালিক ফ‍য়জল ফারুককে অন্যতম সন্দেহভাজন হিসেবে দিল্লি পুলিশের সিট এই ঘটনায় সন্দেহের তালিকায় রেখেছে।