গলায় গলায় বন্ধুত্বের খেসারত গুনছে নেপাল , চিনের কাছ থেকে সস্তায় বিমান কিনে সব নষ্ট!

0

সমাচার ডেস্কঃ- যোগ্য পাইলটের অভাবে বিমান কেনার ছয় বছর পরেও একবারের জন্যেও আকাশে ওড়ানো যায়নি এমএ৬০ মডেলের বিমান। বসিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। যদিও প্রবীণ পাইলটদের একাংশ মনে করছেন, চিনের কাছ থেকে কেনা বিমানগুলি সঠিকভাবে চালাতে না পারার ব্যর্থতার দায় নেপাল এয়ারলাইনস করপোরেশনের।

 

চীনের সাথে বর্তমান সম্পর্ক মোটেও ভালো নয় ভারতের । এর মাঝেই নতুনভাবে নেপালের সাথে সম্পর্কের চিড় ধরেছে। নেপালের অতি চাটুকারিতার জন্য চীনের কাছে পদানত হয়ে নেপাল নিজের সমস্ত ঈমান বিক্রি করেছে। যার খেসারত স্বরূপ এখন প্রতিবেশী দেশ ভারতের সাথে উষ্ণতার পারদ বেড়েছে নেপালি সীমান্তে। কিন্তু তাদের কত বড় সর্বনাশ করে দিয়েছে তা হাতেনাতে এখন টের পাচ্ছে নেপাল।

 

যে ছয়টি বিমান বসিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নেপাল এয়ারলাইন্স করপোরেশন সেই বিমানগুলি ২০১২ সালে চিন থেকে কেনা হয়েছিল। তার এক বছর আগে ২০১১ সালে বাংলাদেশ ও নেপাল থেকে দু’টি পৃথক বিশেষজ্ঞ দল বিমান কেনার জন্য খোঁজখবর নিতে চিনে গিয়েছিলেন। পরে তা ফলপ্রসূ হয়নি।

চিনের বিমান শিল্প করপোরেশনের কাছ থেকে সস্তায় ও বিশেষ সুবিধায় চারটি ১৭ আসন বিশিষ্ট ওয়াই১২ই এবং এবং দুটি ৫৬ আসন বিশিষ্ট এমএ৬০ বিমান কিনে নেয়। ২০১২ সালের চুক্তি অনুযায়ী মাত্র মার চারটি বিমানের দাম চোকায় নেপাল সরকার।