মোদি জমানায় মোদির ই মূর্তি তৈরি মুসলিম মহিলাদের!

কাশ্মীরের 370 ধারা 35 এ বাতিলের পর থেকে একটা চাপা উত্তেজনা ছিল কাশ্মীর জুড়ে। আন্তর্জাতিক চাপ দেশবিরোধীদের চাপ এবং মৌলবাদী গোষ্ঠীর একটা সাময়িক কাজকর্মের ওপর সব চাপকে অগ্রাহ্য করে মোদি সরকার এক অনন্য নজির করেছে। কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি কেমন তা নিয়ে বিরোধীদের মধ্যে যথেষ্ট চাপানউতোর রয়েছে। তাদের মতে কাশ্মীর কিন্তু এখনও রয়েছে কাশ্মীরে। অন্যদিকে তিন তালাকের ইসু একসময় রাজনীতি সরগরম করেছে। কিন্তু সেই বিল পাস হওয়ার পর থেকেই মুখ থুবরে পরেছে বিরোধীদের করা মন্তব্য।

বৃহস্পতিবার মুজাফ্ফরনগরের জেলা শাসকের কাছে এই মর্মে একটি স্মারকলিপিও জমা করেছেন মুসলিম মহিলাদের এই দলের সদস্যরা। মূলত মন্দির নির্মাণ সংক্রান্ত বিশদ বিবরণ জেলা প্রশাসনকে জানানোর কারণেই স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়। নিজেদের সংসারের খরচ বাঁচিয়ে জমানো টাকা থেকেই এই মন্দির নির্মাণের খরচ বহন করেছেন ওই মহিলারা।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও মোদীজিই প্রথম পছন্দের ব্যক্তিত্ব। তাঁর কর্মকাণ্ড, নীতি নির্ধারণের উপরেও যথেষ্ট ভরসা রয়েছে। তাই কেউ বা কারা তাঁকে মুসলিম বিরোধী বলে দাগিয়ে দিল আর ওমনি তা মেনে নিয়ে হইচই শুরু হল এমনটা হবে না। কেউ এমন মুসলিম বিরোধী আখ্যা প্রধানমন্ত্রীর নামের সঙ্গে যুক্ত করতে পারেন না।

রুবি গজনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মুসলিম মহিলাদের জীবনে এক সমুদ্রের ন্যয় পরিবর্তন করেছেন। যা হল তিনি তিন তালাকের অভিশাপ থেকে মুসলিম মহিলাদের মুক্ত করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বিনামূল্যে জ্বালানি গ্যাস ও বাড়ির ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। আর কি চাই।”