বসিরহাটে মোদীর প্রশাসনিক বৈঠক, স্বামী নিখিলকে নিয়ে প্রবেশের অনুমতি না পাওয়ায় বচসায় নুসরাত 

0

সমাচার ডেস্কঃ- রাজ্যে আমফানের ধ্বংসলীলার স্বচিত্র দর্শনে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী । এসেই হেলিকপ্টারে করে রাজ্যে জেলা গুলিতে অবস্থায় পর্যালোচনা ও রাজ্যের সঙ্গে বৈঠক বসেছেন প্রধানমন্ত্রী ‌। এই প্রশাসনিক বৈঠক হয় বসিরহাটে । বসিরহাটের কলেজে ‌।

 বৈঠকে উপস্থিত মুখ্যমন্ত্রী  , রাজ্যপাল, প্রধানমন্ত্রী সঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, দেবশ্রী চৌধুরি-সহ সকল বিজেপি নেতৃত্ব এই বৈঠকে উপস্থিত ‌। বৈঠকে যান বসিরহাট সাংসদ নুজরত । সঙ্গে নিয়ে এসেছিলেন স্বামী নিখিল জৈন এবং দুই আপ্তসহায়কে । প্রথমে সংসদ নুসরাত বলে তাকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয় । কিন্তু এখানে স্বামী ও দুই আপ্তসহায়কে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন নুসরাত । এতে অনুমতি না পাওয়ায় বচসায় জড়ান নুসরাত ‌। 

এর পর বৈঠক সামিল না হয়ে বেরিয়ে আসেন সাংসদ নুসরাত । সাংবাদিকদের সামনে এসে নুসরাত বলেন , স্বামী ও দুই আপ্তসহায়ককে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়নি।এসপিজির তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, ভিতরে প্রশাসনিক বৈঠক হচ্ছে। কোনও রাজনৈতিক দলের বৈঠক নয়। তাই সাংসদ অন্য কাউকে সঙ্গে নিয়ে যেতে পারবেন না। বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি নুসরাত। এখনে বির্তক শুরু করে ফেতর চলে যান সংসদ । 

 

নরেন্দ্র মোদির বাংলা এসেই বড় চমক দিলেন তিনি ঘোষণা করলেন আর্থিক প্যাকে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে পাশে বসিয়ে তিনি বাংলার পরিস্থিতি ঘুরে দেখলে৷ তার পরেই তিনি ঘোষণা করলেন পেয়ে বাংলার রাজনীতি থেকে আরম্ভ করে দুর্গত পীড়িত লোকদের মানুষরা খুবই উজ্জীবিতআজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষনা করেন ,১০০০ হাজার কোটি টাকা আর্থিক সাহায্য করা হবে পশ্চিমবঙ্গকে। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে ও আহতদের পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুরোধে সাড়া দিয়েই রাজ্যে এলেন নরেন্দ্র মোদী। শুক্রবার সকাল ১০.৫০ মিনিটে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে কলকাতায় এসে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। বিমানবন্দরে তাঁকে স্বাগত জানাতে হাজির ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় এবং বিজেপি নেতানেত্রীরা।