লকডাউনের গন্ডি অতিক্রম করে দিল্লি বাসস্ট্যান্ডে লক্ষাধিক কর্মীদের জমায়েত

0

সমাচার ডেস্কঃ- দিন দিন মহামারী আকার ধারণ করেছে চীনের প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। লকডাউনের মধ্যেই দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা । করোনার ভীতির মাঝে দিল্লিতে ধরা পড়ল অন্য ধরণের ছবি। দেশজুড়ে ২১ দিনের যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির যে লাকডাউনের ডাকা , সেই গন্ডি’কে অতিক্রম করে দিল্লির আনন্দবিহার বাসস্ট্যান্ডে ভিড় জমিয়েছেন লক্ষাধিক পরিযায়ী শ্রমিক । তদের দাবি, ২১ দিনের লকডাউনের ফলে, খাদ্য, বাসস্থান, রোজগার বন্ধ করে উত্তরপ্রদেশ সীমানা এলাকা থেকে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করছেন তার ।

ইতিমধ্যেই লকডাউন এর জেরে সমস্ত আন্তরাজ্য বাস ও ট্রেন পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে । যার জেরে কোনও গণপরিবহন না পেয়ে হেঁটেই বাড়ি ফেরার চেষ্টায় পরিযায়ী শ্রমিকরা । তবে উত্তরপ্রদেশ সরকার যোগী আদিত্যনাথ সরকার জানান , তাঁদের তরফে ১,০০০ বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং দিল্লির অরবিন্দ কেজরিওাল সরকারের তরফে ২০০ বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বাসস্টেন্ড মুখে মাস্ক এবং হাতে লাঠি নিয়ে সচেতনতার প্রচার চালচ্ছেন অধিকারীরা । কর্মীরা নিজের মধ্যে দূরত্ব বজায় রাখে তার চেষ্টা চালানো হচ্ছে । এক শ্রমিককে উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা এএনআই জানায়, “আমি একজন দিনমজুর। এখন কোনও কাজ নেই। আমরা কী করব? আমাদের জন্য সরকারের কোনও সাহায্যই পৌঁছায়নি। আমরা আমাদের গ্রামে ফিরে যাচ্ছি। যদি এখানে থাকি না খেতে পেয়ে মরে যাব”।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ শ্রমিকদের বিপর্যয় মোকাবিলা সেখানে ত্রাণ তহবিলের ঘোষণা করেছেন । রাস্তা ধারেই তাদেরকে ট্যাঙ্ক তৈরি করে রাখতে হবে । সচেতনতার জেরে শ্রমিকরা যাতে সীমানা না পেরোয় তা সুনিশ্চিত করতে হবে।

দেশে ইতিমধ্যেই সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে এখন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মোট ৯৫০ জন ছড়িয়েছে । ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকার সাধারণ মানুষের জন্য ১.৭ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প‍্যাকেজের ঘোষণা করেছেন।