কার্গিল যুদ্ধে শহীদ বিক্রম বত্রা ছোটবেলা থেকেই সাহসী ছিলেন, অন্যকে সাহায্য করতে এগিয়ে থাকতেন , জেনে নিন জীবনের গল্প

0

সমাচার ডেস্ক: কার্গিল যুদ্ধের শহীদ বিক্রম বত্রা সবসময় অন্যকে সাহায্য করার জন্য তৈরি থাকতো। শহীদ বিক্রম বত্রার মা কমলা বলেছেন যে , তিনি বিক্রমের অনেক স্মৃতি রেখে দিয়েছেন। ঘরেই শহীদ স্মৃতিসৌধটি ছেলের স্মরণে রাখা হয়েছে এবং ছোট থেকেই সবকিছু রক্ষা করেছেন। ক্যাপ্টেন বিক্রম বত্রা স্কুলে অগ্রণী ভূমিকা পালন করার পাশাপাশি সেনাবাহিনীতে অনেক প্রশংসা অর্জন করেছিলেন।

কমলা বতরা আরও বলেন যে, পালামপুরের সেন্ট্রাল স্কুলে পড়াশোনার সময় জমজ দু’ ভাই বিক্রম ও বিশাল স্কুল বাসে আসছিল, দরজা খোলা থাকায় মোনা নামে এক ১১ বছর বয়সী শিক্ষার্থী চলন্ত বাস থেকে পড়ে গিয়ে ছিল।

ড্রাইভার ব্রেক লাগানোর সাথে সাথে বাসটি যখন ধীরে ধীরে ধীরে থামে তখন বিক্রম প্রথমে ঝাঁপিয়ে পড়ে ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে তার ভাইয়ের সহায়তায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করায়। তখন বিক্রম জামা একের ছাত্র ছিল। ছোটবেলা থেকেই তিনি সবার সুরক্ষায় এগিয়ে থাকতেন।

কার্গিল যুদ্ধে ক্যাপ্টেন বিক্রমের সাথে সুবেদার মেজর ছিলেন সাব-ডিভিশন বৈজনাথের সিম্বল পঞ্চায়েতের বাসিন্দা ধনভীর সিংহ রানা, তিনি বলেছেন যে তাঁর ( বিক্রম) অদম্য সাহসের কারণে তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীকে সবচেয়ে ২ কঠিন চূড়ায় জয়ী করেছিলেন।পয়েন্ট ৫১৪০এ জয়ের পরে ৭ জুলাই, ১৯৯৯ এ ১৩ জ্যাক রাইফেলের ডেল্টা সংস্থা পয়েন্ট ৪৮৭৫ এ আরোহণের আদেশ পেয়েছিল।