দীর্ঘ আইনি যুদ্ধের অবসান ,পাকিস্তানে দখলমুক্ত ১২০০ বছরের পুরনো হিন্দু মন্দির

0

সমাচার ডেস্ক: পাকিস্তানে বড় জয়, লাহোরে অবস্থিত ১২০০ বছরের পুরনো হিন্দু মন্দিরের অবৈধ দখল অপসারণের পর এটি এখন জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। এই মন্দির থেকে অবৈধ দখল উচ্ছেদের জন্য দীর্ঘ যুদ্ধ করতে হয়েছে।এই বিষয়ে দীর্ঘদিন আদালতে মামলা চলে,পরে আদালত মন্দিরটি সংস্কারের নির্দেশ দেন।

প্রকৃতপক্ষে, ইভাকুই ট্রাস্ট প্রপার্টি বোর্ড (ETPB), একটি ফেডারেল সংস্থা যা পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের উপাসনালয়গুলির তত্ত্বাবধান করে, গত মাসে একটি খ্রিস্টান পরিবারের কাছ থেকে লাহোরের বিখ্যাত আনারকলি বাজারের কাছে বাল্মীকি মন্দিরের দখল নিয়েছিল৷

ETPB কর্মকর্তা অনুযায়ী ,এই খ্রিস্টান পরিবার দাবি করে যে তিনি হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত হয়েছিলেন এবং শুধুমাত্র বাল্মীকি সম্প্রদায়ের লোকদের পূজার জন্য মন্দিরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়েছিল। তবে দুই দশক ধরে এই পরিবারটি এখানে দখল করে ছিল। “মন্দিরের জমিটি রাজস্ব রেকর্ডে ETPB কে হস্তান্তর করা হয়েছিল, কিন্তু পরিবারটি সম্পত্তির মালিক বলে দাবি করে ২০১০-১১ সালে আদালতে একটি মামলা করেছিল,”

তিনি আরো বলেন, মামলা করা ছাড়াও পরিবারটি মন্দিরটি শুধুমাত্র বাল্মীকি হিন্দুদের জন্য খুলেছিল। এ কারণে ট্রাস্টের কাছে আদালতে মামলা করা ছাড়া কোনো উপায় ছিল না। “মিথ্যা দাবি করার জন্য খ্রিস্টান পরিবারকে এবারও আদালতের তিরস্কার করা হয়েছে,”।

১৯৯২ সালে, ভারতে বাবরি মসজিদের বিতর্কিত কাঠামো ভেঙ্গে ফেলার পর, একটি বিক্ষুব্ধ জনতা বাল্মিকি মন্দিরে হামলা চালায় এবং কৃষ্ণ ও বাল্মীকির মূর্তি ভাংচুর করে। রান্নাঘরে বাসন-কোসন ও ক্রোকারিজ ভাঙার পাশাপাশি সোনা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল, যা থেকে মূর্তিগুলি সজ্জিত করা হয়েছিল। সেই সঙ্গে মন্দির ভেঙেও আগুন দেওয়া হয় ভবনে।

তবে ইটিপিবি মুখপাত্র আমির হাশমি বলেছেন যে আগামী দিনে মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী বাল্মীকি মন্দির মেরামত করা হবে। গত বুধবার,১০০টিরও বেশি হিন্দু, কিছু শিখ এবং খ্রিস্টান নেতা মন্দিরে জড়ো হয়েছিল এবং হিন্দুরাও তাদের ধর্মীয় আচার পালন করার সময় লঙ্গারের আয়োজন করেছিল।