কেরলে বন্যা দুর্গতদের ১ কোটি টাকা দিয়ে “চোখের জল” মুছেছিলেন ;অবশেষে জীবনের “হেলিকাপ্টার শট” দেবার আগেই বিদায়

0

সমাচার ডেস্ক: বন্যা দুর্গত ভয়াবহ পরিস্থিতি। তখন সুশান্ত সিং রাজপুত ঝাঁপিয়ে পড়েছে দুর্গতদের পাশে। কেরলের মানুষের মনে রেখেছে সেই বন্যার জল কিন্তু বিদায় দিল রাজপুতকে চোখের জলে।

অনুরাগীর এই প্রস্তাব শুনে তাঁর পাশে দাড়িয়েছিলন সুশান্ত সিং রাজপুত। ওই অনুরাগীর হয়ে তিনি ১ কোটি টাকা দান করেন কেরল বন্যা ত্রাণ তহবিলে।

সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী ও শোক প্রকাশ করেছেন। এবং 34 বছরে চলে যাওয়া এই বালককে আরো সাহস যোগানোর কথা উঠে আসে বিভিন্ন মহল থেকে। মানুষ কিভাবে একা হয়ে যায় দিনের শেষে।

কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নও তারকার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন। তিনি লিখেছেন-“, সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর খবরে তিনি গভীরভাবে দুঃখিত। পাশপাশি বন্যায় অর্থ সাহায্যের উল্লেখও করেছেন তিনি।

অতীত পিছু ডাকছিল, কিন্তু সোনালি ভবিষ্যতের তাড়নাও তো কম ছিল না। দুয়ের মাঝখানে পড়ে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিলেন সুশান্ত,তাই মায়ের কোলে একটু শান্তি চেয়েছিলেন বোধহয়। তার মৃত্যু ঘিরে রহস্য দানা বাঁধছিল একটু একটু করে। আত্মহত্যা নাকি খুন? কিন্তু ময়নাতদন্তের রিপোর্টে উঠে এসেছে আত্মহত্যার কথা। যদিও সেই ইতিহাস হয়তো সারা জীবন বন্দী থেকে যাবে সেই চার দেওয়ালে! কিন্তু মানুষের মনে তার কর্মজীবন স্থায়ী হয়ে যাবে।

খুব অল্প বয়সে মাকে হারিয়েছেন অভিনেতা। ২০০২ সালে মৃত্যু হয় সুশান্তের মায়ের। ছেলের আকাশছোঁয়া সাফল্যের ছিটে ফোঁটাও দেখে যেতে পারেননি সুশান্তের মা। শুধু তাই নয়, একটা আক্ষেপ আজীবন সুশান্তকে তাড়া করে বেড়িয়েছে-মায়ের শেষ আবদার রাখেননি তিনি,এমনকি মায়ের মৃত্যুতে এক ফোঁটা চোখের জল ফেলেননি সুশান্ত সিং ।