নগ্ন হলেই মিলবে হাউজফুলে কাজ,সাজিদ খানের বিরুদ্ধে গুরুতর যৌন হেনস্তার অভিযোগ!

0

সমাচার ডেস্ক:যৌন হেনস্তার অভিযোগ বলিউড পরিচালক সাজিদ খানের বিরুদ্ধে।অভিযোগটি করেছেন পউলা নামের এক ভারতীয় মডেল।২০১৮ সালে বলিউড পরিচালক সাজিদ খানের বিরুদ্ধে একাধিক যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনেছিলেন বলিউডে একাধিক অভিনেত্রী,মডেলরা।

২০১৮ সালে মিটু অভিযোগের জেরে সেই সময় হাউজফুল ৪ ছবির পরিচালকের আসন থেকে বাদ দেওয়া হয় সাজিদ খানকে। তারপর থেকে জনসমক্ষে সেভাবে দেখা মেলে না ৪৯ বছর বয়সী এই পরিচালক। নতুন করে পরিচালকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ আনলেন এক ভারতীয় মডেল।

পাউলা নামের এক মডেল পরিচালক সাজিদ খানের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থা র অভিযোগ এনেছেন।পউলা নামের এক মডেল সাজিদ খানের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ আনলেন। ইনস্টাগ্রাম পোস্টে পরিচালকের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ আনেন এই মডেল। মিটু আন্দোলন নিয়ে যখন বলিউডে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল তখন কেন চুপ ছিলেন পউলা? সেই প্রশ্নেরও উত্তর দিয়েছেন নিগৃহীতা মডেল। তিনি বলেন ‘ইন্ডাস্ট্রিতে আমার কোনো গডফাদার নেই এবং আমি ছিলাম আমার পরিবারের একমাত্র আর্থিক অবলম্বন। সেই কারণেই আমার সাহসে কুলোয়নি’। এছাড়াও সেই সময় বাবা-মা সঙ্গে থাকাতেই নাকি মুখ ফুটে সাজিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে পারেননি তিনি। মাত্র ১৭ বছর বয়সে সাজিদ খানের যৌন লালসার শিকার হন পাউলা, তেমনই দাবি মডেলের। তিনি লেখেন, ‘আমার সঙ্গে ও খুব খারাপ ভাবে কথা বলছিল। এবং আমাকে খারাপভাবে ছোঁয়ার চেষ্টা করে চলে ছিল’।

 

View this post on Instagram

 

🙏🏼 Before democracy dies and there is no freedom of speech anymore I thought I should speak !

A post shared by PAULA (@paulaa__official) on Sep 9, 2020 at 5:18am PDT

পাউলা আরও বলেন, সাজিদ খান তাঁকে সরাসরি বলেন যদি হাউজফুলে কোনও চরিত্র পেতে চাও তাহলে তাঁর সামনে নগ্ন হতে হবে। কতজন মেয়ের সঙ্গে যে এইরকম ব্যবহার করেছেন সাজিদ খান সে সম্পর্কে ভাবলেও শিউরে উঠেন পাউলা, বললেন তিনি। নাবালিকা অবস্থায় এই ভয়ঙ্কয় অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়ে পুরোপুরিভাবে ভেঙে পড়েছিলেন, বললেন পাউলা। সবশেষে মডেলের দাবি সাজিদ খানের মতো মানুষের জায়গা সংশোধনাগারে। কাস্টিং কাউচ এবং স্বপ্ন চুরমার করে দেওয়ার দায়ে জেলে থাকা উচিত সাজিদের।

 এর আগে হওয়া অভিযোগের জেরে শুধু হাউজফুল ফোর থেকে বাদ পড়াই নয়, ইন্ডিয়ান ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ডিরেক্টরস অ্যাসোশিয়েশনের তরফে ১ বছরের জন্য নির্বাসনে পাঠানো হয় সাজিদকে। গত বছর ডিসেম্বরেই সাজিদের সেই ব্যানের মেয়াদ শেষ হয়েছে।