‘আমার স্বামীর হত্যাকারীদের শাস্তি চাই’,গান স্যালুটে শেষ বিদায় বাংলার বীর সন্তানকে

0

সমাচার ডেস্ক: কথা ছিলে নবান্নে ফিরবেন বাড়ি, কিন্তু বাড়িতে ফিরল তাঁর কফিনবন্দি দেহ।সোমবার দুপুরে পানাগড় সেনা ঘাঁটি থেকে শহিদ শ্যামল দাসের নিথর দেহ মুর্শিদাবাদের খড়গ্রামের কীর্তিপুর গ্রামে আসে।মরদেহ বাড়িতে ফিরতে কান্নায় ভেঙে পড়েন শ্যামলের স্ত্রী সূপর্ণা ও সকাল গ্রামবাসী।

প্রিয়জনের চেখের জলে শেষ বিদায় নিলেন মণিপুরে শহিদ জওয়ান শ্যমল দাস। সোমবার বিকেলে গান স্যালুটে শেষ বিদায় জানানো হয় ।শ্যামলের স্ত্রী সুপর্ণা বলছেন,আমার স্বামীকে যারা হত্যা করেছে তাদের শাস্তি চাই।

আপনাদের জানিয়ে রাখি ২০০৯ সালের নভেম্বরের অসম রাইফেলস এ যোগ দিয়েছিলেন মুর্শিদাবাদের খড়গ্রামের শ্যামল দাস। পরিবারের একমাত্র রোজগেরে সদস্য ছিলেন তিনি। কিন্তু তিনি আজ আর নেই। তবে দুর্গাপুজোর আগে শেষ গ্রামে ফিরেছিলেন তবে পঞ্চমীর দিন আবার ফিরে গিয়েছিলেন।

কিন্তু পরিবারকে বলে গিয়েছিলেন যে নবান্নে ফিরবেন। সামনে নবান্ন কিন্তু তার আগেই এই সব কিছু ঘটে গেলো।ফারদিন মায়ানমার সীমান্তে কাছে চূড়াচন্দ্রপুর জেলায় ৪৬ অসম রাইফেলসের কনভয়ে হামলা চালানো হয়। সেখানেই শহীদ হয়েছেন শ্যামল দাস-সহ চার জওয়ান। এই হামলায় মৃত্যু হয় কর্নেল ত্রিপাঠীর স্ত্রী এবং ছেলেরও।