ফুঁসছে হংকং, শুরু গৃহযুদ্ধের আগুন,গনবিদ্রোহের অক্টোপাস ঘিরে ধরেছে চীনের একনায়কতন্ত্র সাম্রাজ্যবাদী সরকারকে

0

সমাচার ডেস্ক: নিজের দেশের অন্তঃকলহ এখন জেরবার চীন প্রশাসন। কিভাবে নিজের অভ্যন্তরীণ সমস্যা মেটাবে তা নিয়ে এখন ড্রাগনের দেশে ত্রাহি ত্রাহি রব।

দীর্ঘদিন ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অধীনে ছিল হংকং৷ ১৯৯৭ সালে এই অঞ্চলকে চিনের হাতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়৷ এর পর তারা স্বাধীনভাবে বাঁচবে বলে আশা প্রকাশ করেছিল কিন্তু তার তাদের ভাগ্যে হয়নি একনায়কতন্ত্র চীনের পাশবিক অত্যাচারের কাছে।

এখানকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, চিনের মূল ভূখণ্ডের নাগরিকরা যেমন রাষ্ট্রের কড়া নজরে থাকেন, তেমনই হংকং-এর নাগরিকদেরও রাষ্ট্রের অধীনে আনতে চাইছে শি জিনপিং সরকার৷ হংকং-এর গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা চলছে৷ গত বছর থেকেই এই প্রতিবাদে উত্তাল হংকং এবার সেই মৌন মিছিল গণতান্ত্রিক অধিকারের ওপর এক নারকীয় হামলা চালাল চীন প্রশাসন।

রবিবার চিন সরকারের আনা জাতীয় নিরাপত্তা আইনের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ মিছিল থেকে ৫৩ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ বিশ্ব এখন জেনে গেছে চিনে কোনো গণতন্ত্র নেই। চীনের মানুষ জানেও না তার পরিবার-পরিজনের মৃতদেহ কোথায় রাখা হয়েছিল। কিন্তু মুখে বলব আর জায়গা নেই তবে সরকার চুপ করিয়ে দেবে একেবারে।

কাউলুন শহরের জরডান থেকে মং কক পর্যন্ত মৌন মিছিলে সামিল হয়েছিলেন কয়েক হাজার মানুষ। তাঁদের মধ্যে থেকেই ৫৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়৷ মিছিলের পথ আঁটকানোর চেষ্টা করে সশস্ত্র চিনা পুলিশ৷ প্রতিবাদীদের রুখতে তাঁদের উপর লঙ্কার গুঁড়োও ছড়ানো হয়৷