বাড়িয়ে দিন দুটি হাতঃ ক্ষুধার্ত গলায় প্রহরীর ভূমিকায় করছে “ঘেউ ঘেউ”

0

অমিত সরকারঃ-আমরা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সাক্ষী, আমরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের, মন্বন্তরের সাক্ষী, আমরা পৃথিবীর রহস্য উন্মোচনের সাক্ষী। আমরা হয়তো সাক্ষী শতকের পর শতক ধরে পৃথিবীর সমস্ত অসুখের। এর মাঝেও কখনো জন্মান্তরের কাহিনী কখনো মন্বন্তর এর কাহিনী সমস্ত কাহিনীর মাঝে চলে যায় কিছু প্রাণী দের কথা।

বাস্তুতন্ত্রের প্রধান সৈনিক হিসেবে অনবরত কাজ করে চলেছে। কিন্তু বিপদ বড় বালাই। কখন যে তারা অজান্তে শিকারি পাত্রের খাদ্যবস্তু তে পরিণত হচ্ছে তা জেনেও মুখোশের আড়ালে হাসছে মনুষ্যজাতি। প্রসঙ্গক্রমে বর্তমান অবস্থা ঠিক সেরকম ই। কুকুরগুলি ক্ষুধার্ত অবস্থায় পথের দু’ধারে শুয়ে রয়েছে।

যে কুকুর গুলোর প্রতি মুহূর্তে আমাদের পাহারা দিয়ে চলে রাতের পর রাত দিনের পর দিন তারা এই অবস্থায় রাস্তার পাশে পড়ে রয়েছে যেন মন্বন্তরের ইতিহাস হিসেবে।

কারণ মানুষ আজ বড়ই ব্যস্ত হিসাব মিলাতে তবুও তারা শুকনো গলায় ঘেউ ঘেউ করে আমাদের রক্ষা করে যাচ্ছে।প্রতিনিয়ত। কখনো বা হাঁপিয়ে উঠছে নিজের কান্না কে বন্ধ করে।

তাই তাদের পাশে দাঁড়ানোর আরতি সকলের জন্য। আপনার নিজের নিজের এলাকার কুকুর গুলো কে খেতে দিন যে যা পারেন আপনারাও দিন।