স্লিম ফিগার টিকিয়ে রাখতে যা করবেন

ডেস্ক রিপোর্টারঃ তলপেটে মেদ নিয়ে দুর্ভাবনা আছে। আর এর কারণও আছে। শরীরে অন্যত্র মেদ জমার চেয়ে তলপেটের মেদ অনেক গুরুগম্ভীর, অনেক বেশি ভাবনার। নিতন্ত ও উরুতে মেদ জমার চেয়ে বিপজ্জনক তো বটেই। আর তলপেটের এই মেদের সঙ্গে সম্পর্কিত নানা রকমের বড় বড় অসুখ যেমন- হৃদরোগ, স্ট্রোক ও টাইপ-২ ডায়াবেটিস। শরীর ভারি হওয়ার সঙ্গে জীনগত প্রবণতাও আছে বটে। কোথায় বেশি মেদ হবে তাও হয়ত কিছুটা নির্ধারিত তবে জীবন যাপন পছন্দ যে এই ইস্যুকে বেশ শোচনীয় করে তুলতে পারে তা বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন।


অনেকের ধারণা চর্বিযুক্ত মাংস , পানিয় , মাখন বেশি বেশি খাওয়া হলো তলপেটে মেদ হওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ। আসল কথা হলো যে কোনও ভাবে হোক বাড়তি ক্যালোরি গ্রহণ হলো কোমর রেখা স্ফীত করার মূল কারণ। ভাত হোক, মেদ হোক বেশি ক্যালোরি গ্রহণ

 


হলো তলপেটে মেদের মুল কারণ। তবে তলপেটে মেদের একক কারণ নেই। বংশগতি, খাওয়া, বয়স, জীবন যাপনের ধরণ সবগুলোই কোনও না কোনও ভাবে দায়ী। খাওয়ার অভ্যাস বদলালে তলপেটে মেদ অনেক কমানো যায়। তাই বেশি ভাত খাবেন না, চিনি, মিষ্টি নয়, ঘন চর্বি কম আহার এবং বাড়াতে হবে সবজি ও ফল। খেতে হবে কম করে। একসঙ্গে অতিভোজন করা যাবে না। বাড়তি ক্যালোরির কথা বলছিলাম। অনেকে মদ্য পান করেন ফলে তাদের মেদভূড়ি বাড়ে। কোমল পানীয়, ভরাট পেটে খাবার, অতিভোজন, এগুলো সবই মেদভূড়ি হওয়ার পেছনে কম বড় কারণ নয়। যত রকমের চর্বি আছে এর মধ্যে বেশি বিপজ্জনক হলো ট্রান্সিফ্যাট । তেলকে আংশিক হাইড্রোজেনায়ন করে বাণিজ্যিক কারণে তৈরি করা হয় ট্রান্সফ্যাট । ফাস্টফুড, কুড়মুড়ি, বিস্কিট, কেক পেস্ট্রিতে রয়েছে ট্রান্সফ্যাট। ওয়েক ফরেস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দেখেছেন, ট্রান্সফ্রাট গ্রহণের ফলে শরীরের অন্যত্র মেদ এসে পুন:স্থাপিত হয় তলেপেটে। ফলে মেদভূড়ি হয়।


মেদভূড়ি কমাতে গ্রীন টি উপযোগী অনেকে বলেন। কমায় শরীরের ওজন। গবেষকদের ধারণা কিছু জিনিষ যেমন ক্যাটেচিন যা গ্রীন টিতে আছে, তা শরীরকে ক্যালোরি পুড়াতে উদ্দীপিত করে এর মেদভূড়ি কমাতে সাহায্য করে। ব্লু-বেরি ফলের কথাও বলেন কেউ কেউ। মেদ ভূড়ির পেছনে ফাস্টফুডের অবদান অনেক বেশি। এব্যাপারে সন্দেহ নাই। অনেক ফাস্টফুড খাবারে থাকে প্রচুর চর্বি, অনেক বেশি ক্যালোরি আর এসব খাবার অনেকে খানও বেশি পরিমাণে। ক্যালোরি এতে অনেক বেশি খাওয়া হয়। ওজন বাড়ে শরীরে, মেদভুড়ি হয়। অনেক ফাস্টফুড রেস্তোরায় পুষ্টিতথ্য দেওয়া হয় না। দেখা গেছে পুষ্টিতথ্য দেওয়া থাকলে, যারা ফাস্টফুড খান তারাও ছোট অংশ বা কম পরিমাণে খান। নিয়মিত সফট ড্রিংকের বদলে ডায়েট সফট ড্রিংক পান করলে মেদভূড়ি বাড়া রোধ হয় একথাটিও ঠিক নয়। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের মতামত ‘আধুনিক খাদ্যে বাড়তি চিনির প্রথম নম্বর উৎস হলো কোমল পানীয় ও চিনি ও মিষ্টি পানীয়।’ বাড়তি চিনি মানে বাড়তি ক্যালোরি-ওজন হ্রাস মোকাবেলা ও মেদভূড়ি হ্রাসের জন্য যে জিনিস পরিহার করতে হয় তাহলো এটি। যদিও কোমল পানীয়তে পরিশোধিত চিনির বদলে হাইফ্রকুটোজ কর্ন সিরাপ যোগ করা হচ্ছে কোমল পানীয়ের প্রধান মিষ্টক হিসেবে। তবুও মেদস্থূলতা মহামারীর পেছনে এর বড় অবদান রয়েছে বলে বিশেষজ্ঞ মহল মনে করেন। ডায়েট সোড়া পান করলে কি লাভ হতে পারে?এক্ষেত্রেও কোনও ইতিবাচক গবেষণা-মতামত এখনও পাওয়া যায়নি।

ওয়েস্টলাইন বা কটি রেখা ক্ষীন করার জন্য খাদ্যে আঁশ যোগ করা একটি প্রয়োজনীয় বিষয়। বলা হচ্ছে গোটা সস্যদানার কথা। যেমন- ময়দার রুটি বা লুচির বদলে আটার রুটি। ব্রাউন রাইস এদেশে দুর্লভ। অনেক দেশে হোলগ্রাম রাইস ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে পাওয়া যায়। আমাদের দেশে চাল হলো- ডাবল বিডিশেড রাইস। এতে আঁশ ও ভিটামিন নেই। আছে শর্করা ও কিছু প্রোটিন। তাই এরকম চাল আমাদের শক্তির প্রধান উৎস হওয়াতে অপুষ্টি বাড়ছে। আমেরিকান জার্নাল অব নিউট্রিশন জার্নালে প্রকাশিত একটি সাম্প্রতিক নিবন্ধে দেখা যায় ক্যালোরি নিয়ন্ত্রিত খাবার ও গোটা শস্যদানা সমৃদ্ধ খাবার মেদভূড়ি হ্রাসে খুবই কার্যকর। স্প্যাগেটি, কর্নফ্লেক পরিশোধিত শর্করা থেকে তৈরি অবশ্য হোল প্রেনও আছে কোনও কোনও দেশে। পপকর্ন খাবার, আঁশ সমৃদ্ধ।

সুনিয়ন্ত্রিত পরিকল্পনা গ্রহণ করে ওজন হ্রাসের প্রচেষ্টা নিলে শরীরের মেদ, পেটেরও মেদ গলতে শুরু করে। স্বাস্থ্যকর আহার ও নিয়মিত ব্যায়াম হলো মেদভূড়ি কমাবার শ্রেষ্ঠ উপায়।
কিছু স্পট এক্সারসাইজ আছে যেমন-উঠ-সব, ক্রানেচস এবং সেধবনের পেটের ব্যায়াম করলে যে পেটের মেদ কমবেই তা নয়, এসব ব্যায়ামে পেটের পেশী মজবুত হয় এবং তা মেদ হারাতে সহায়ক নয়। তবে এসব ব্যায়ামে পেটের মেদ কমবেই এমনও নয়। পেটের মেদ বা সার্বিকভাবে মেদ হারানোর উপায় হলো সুষম ও পরিমিত খাদ্য ও নিয়মিত ব্যায়াম। এরোবিক ব্যায়াম, যেমন দৌড়ানো, সাইকেল চালানো, সাঁতার কাটা, টেনিস খেলা বেশ উপযোগী ব্যায়াম।