বিমান ওড়া দেখতে দেয়নি, শেষ পর্যন্ত পঞ্চম পাশ যুবক নিজেই বানিয়ে ফেললেন বিমান

0

সমাচার ডেস্কঃ রাজস্থানের সাধারণ পরিবার থেকে উঠে আসা ব্রিজমোহনের ছোট থেকেই বিমানে ওঠার ইচ্ছে ছিল । মাথার উপর দিয়ে উড়ে যেত বিমান। বিমানে উঠনা নামা দেখতে ছুটে গেল জয়পুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে । শুধু বিমান দেখা না বিমানে ওঠারও শখ ছিল তার, কিন্তু সেখানে ঢুকতে গিয়ে বাধা দিয়েছিল সেখানকার নিরাপত্তারক্ষীরা তাই নিরাশ হয়ে বাড়ি ফিরতে হয়েছিল ব্রিজমোহনকে। সেই আঘাতই তাকে অনুপ্রেরণা যুগিয়ে ছিল,এরপর সাতপাঁচ না ভেবে নিজের শক পূরণের জন্য নিজেই বিমান তৈরি করার পরিকল্পনা শুরু করে। দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর বানিয়ে ফেললো আস্ত একটা বিমান।

রাজস্থানের জয়পুরের রাজলদেসরের বাসিন্দা ব্রিজমোহন। পড়াশোনা তেমন ছিল না পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পড়া করেছেন তিনি। কর্মে মোবাইল এবং কম্পিউটার সারানোর দোকান রয়েছে তাঁর।এই দোকানের ওপর দিয়েই চলতো তার পরিবার।দীর্ঘ আট বছর ধরে কঠোর পরিশ্রমের পর আস্ত একটি বিমান বানিয়েছেন বজরঙ্গী(ব্রিজমোহন)।যে বিমান ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারে। বিমানে ৪৫ লিটার মতো জ্বালানির ট্যাঙ্ক রয়েছে। সেই জ্বালানিতে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত উড়তে পারে তাঁর বিমান। এমনই দাবি করেছেন বজরঙ্গী।বিমানে বসার জায়গা রয়েছে দুটি। বিমানটি তৈরি করতে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে বলে দাবি বজরঙ্গীর। দোকান চালিয়ে যে টাকা আয় করতেন তা দিয়েই বিমান তৈরির কাজে খরচ করেছেন বজরঙ্গীর। এমনকি, তাঁর কয়েক জন আত্মীয়-স্বজন আর্থিক সহযোগিতা করেছেন বলে জানান ব্রিজমোহন ওরফে বজরঙ্গীর। বিমান তো বানিয়েছেন বজরঙ্গী, কিন্তু ওড়াবেন কী ভাবে, তা ভেবেই আকুল বজরঙ্গী। বিমান ওড়ানোর অনুমতি পেতে সরকারের দ্বারস্থ হয়েছেন বজরঙ্গী। ঘরের ছেলের এই আবিষ্কারে উচ্ছ্বসিত গ্রামবাসীরাও। তাঁরাও আশায় রয়েছেন, কবে বজরঙ্গীর বিমান আকাশে উড়বে।