কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের বিক্ষোভ ও ডেপুটেশন কর্মসূচি

0

হক জাফর ইমাম, মালদা:একনায়কতন্ত্র প্রশাসন পরিচালনা করার প্রতিবাদে কেন্দ্র এবং রাজ্যের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের বিক্ষোভ ডেপুটেশন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত করা হয়। এই দিনের ডেপুটেশন বিক্ষোভ কর্মসূচিতে নেতৃত্বে ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমেন মিত্র এবং পশ্চিমবঙ্গের কংগ্রেস দলের পর্যবেক্ষক’ গৌরভ গগৈ’র সহ জেলা কংগ্রেস নেতৃত্ব। বিক্ষোভ কর্মসূচির পরে জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারের কাছে ডেপুটেশন দেওয়া হয়।বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে মালদা জেলা প্রশাসনিক ভবনের সামনে মঞ্চ করে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারের একনায়কতন্ত্র  প্রশাসন চালানোর প্রতিবাদ জানিয়ে এই ডেপুটেশনের বিক্ষোভ কর্মসূচি গ্রহণ করে রাজ্য কংগ্রেস নেতৃত্ব।

এদিনের এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমেন মিত্র, প্রদেশ কংগ্রেস নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য, মালদা জেলা কংগ্রেসের অবজারভার আব্দুর সাত্তার, দক্ষিণ মালদার সংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী,জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোস্তাক আলম , বিধায়ক মইনুল হক, বিধায়ক অর্জুন হালদার, বিধায়ক আসিফ মেহেবুব জেলা কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি লক্ষ্মী গুহ প্রমুখ।এদিন বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমেন মিত্র বলেন,  কেন্দ্র সরকার কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা তুলে দিয়ে কি এমন বাহাদুরি কাজ করেছে। মোদি সরকারের সিদ্ধান্তের পর কাশ্মীরের মানুষ অনেক কষ্টে আছেন। নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন। মানুষ ঘর থেকে বেরোতে পারছে না । শিক্ষা-স্বাস্থ্য থেকে সার্বিক উন্নয়ন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে।

সৌমেন মিত্র আরো বলেন,  এরাজ্যে জেলায় জেলায় দলের নেতাকর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন। মিথ্যা মামলায় দলীয় নেতাকর্মীদের ফাঁসানো হচ্ছে। এরই প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি এবং ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছে।রাজ্য কংগ্রেস নেতা আব্দুর সাত্তার বলেন, গোটা দেশে অর্থনৈতিক মন্দা চলে এসেছে। রিজার্ভ ব্যাংক থেকে টাকা নিতে হয়েছে কেন্দ্রকে। শিল্পগুলি ধুঁকছে । ডলারের তুলনায় টাকার দাম হু হু করে নামছে। এমনই অবস্থা দেশের। এর জন্য সম্পূর্ণরূপে দায়ী করেছেন মোদি সরকারকে।  জেলা কংগ্রেসের সভাপতি মোস্তাক আলম বলেন , গণতন্ত্র ধর্মনিরপেক্ষ এবং দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসনের দাবিতে জেলাশাসকের দপ্তর ঘেরাও করে ডেপুটেশন দাওয়া হয়েছে।