“কমিউনিস্টরা রাষ্ট্রধর্ম মানেন না, কিন্তু রাষ্ট্রধর্ম যদি ইসলাম হয়, তাহলে তাঁদের আপত্তি নেই।” বিস্ফোরক তাসলিমা

0

সমাচার ডেস্কঃ- ধর্মের নামে মোহ এসে ধরলে সেই সমাজকে বাঁচানো মুশকিল। তাসলিমা নাসৃণ বাংলাদেশ থাকার সময় এই বিষয়গুলো নিয়ে মুখ খুলেছেন বারংবার। তিনি বিতাড়িত হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের বাম শাসনের প্রতি বিরক্ত।মুখোশ খুলে দিয়েছেন বহুবার। আর এবার তিনি মুখ খুললেন বাংলাদেশের ধর্মনিরপেক্ষ করবার জন্য আন্দোলন বা প্রতিধ্বনি উঠেছিল তার দমিয়ে দিতে চাইছে এখন বাংলাদেশে।

 

কারণ সেখানে গণতন্ত্র এর বাণী কি সত্যি প্রদীপের তলায় এসে ঠেকে যাচ্ছে? তিনি প্রশ্ন করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায় । তিনি বলেন “বাংলাদেশের সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ সংবিধান থেকে রাষ্ট্র ধর্ম বাদ দেওয়ার জন্য সরকারের লোকদের আইনী নোটিশ পাঠিয়েছিলেন। সেই আইনী নোটিশ পরদিনই ঘোষবাবুকে প্রত্যাহার করতে হয়েছে । দেশের অবস্থা বোঝার জন্য এর চেয়ে চমৎকার উদাহরণ আর কিছু নেই।

 

১৯৮৪ সাল থেকে রাষ্ট্রধর্ম থাকার বিরুদ্ধে আমি লিখছি, বলছি। তাতে ঘোড়ার ডিম হয়েছে। বরং আমার আত্মজীবনীর যে খণ্ডটিতে রাষ্ট্রধর্ম না থাকার পক্ষে আমি মত ব্যক্ত করেছিলাম, সেই খণ্ডটি পশ্চিমবঙ্গের বামফ্রণ্ট সরকার নিষিদ্ধ করেছে ২০০৩ সালে। এমনিতে কমিউনিস্টরা রাষ্ট্রধর্ম মানেন না, কিন্তু রাষ্ট্রধর্ম যদি ইসলাম হয়, তাহলে তাঁদের আপত্তি নেই। ” এরপর তিনি আরও একধাপ এগিয়ে বলেন

 

“অশোক কুমার ঘোষ ব্যর্থ হয়েছেন, এক পা এগিয়ে দু’পা পিছিয়েছেন। কিন্তু আইনী নোটিশ পাঠাবার জন্য এক পা যে এগিয়েছিলেন অর্থাৎ যে সাহসী পদক্ষেপটি করেছিলেন, সেই পদক্ষেপটির জন্য তাঁকে কুর্ণিশ করি। কেন তিনি পরে নোটিশটি উইথড্র করেছেন? তিনি আসলে বাধ্য হয়েছেন করতে। তাঁর এই ব্যর্থতার দায় তাঁর নয়, এই ব্যর্থতার দায় তাঁর কপালপোড়া দেশটির।”