‘চিনা ভাইরাস’ ও  ‘উহান ভাইরাস’ ২০১৮ সালের মার্কিন গবেষণায় বাড়ল জল্পনা; গোষ্ঠী সংক্রমণের আশঙ্কা ভারতে!

0

সমাচার ডেস্ক: দুর্ঘটনাবশত’ ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস? আমেরিকা একটি অভ্যন্তরীণ কূটনৈতিক কেবল প্রকাশ্য আনার পর তুঙ্গে উঠল সেই জল্পনা।২০১৮ সালের জানুয়ারিতে পাঠানো সেই কেবলের আগেই উহানের ওই ল্যাবে ঘুরে দেখতে গিয়েছিলেন চিনে মার্কিন দূতাবাসের আধিকারিকরা।

সেই বার্তায় উদ্বেগ প্রকাশ করে জানানো হয়েছিল, সেইরকম বিপজ্জনক গবেষণাগারে সুরক্ষিতভাবে কাজ করার জন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মীর ব্যাপক অপ্রতুলতা রয়েছে।  অন্যদিকে ভারতের পরিস্থিতি যথেষ্ট উদ্বেগজনক।

ভারতে করোনার গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে, সতর্ক করল ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন ;আক্রান্ত হয়েছেন ৩৮,৯০২ জন।লাফিয়ে বাড়ছে করনা সংক্রমণের হার। অন্যদিকে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর এভাবে যদি চলতে থাকে তবে কিন্তু নির্দিষ্ট সীমা অতিক্রম করে যাবে আক্রান্তের সংখ্যা। যা দেশের পক্ষে ভয়ানক।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুসারে আজ ১৯ জুলাই রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ভারতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ১০,৭৭,৬১৮ জন। এখনও পর্যন্ত কোভিড-১৯ সংক্রমণে দেশে মৃত্যু হয়েছে ২৬,৮১৬ জনের। সংক্রমণ সারিয়ে এ যাবৎ সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬,৭৭,৪২৩ জন। ভারতে এখন অ্যাকটিভ কেস ৩,৭৩,৩৭৯।তবে এখানেই শেষ নয়। এই নিয়ে সমীক্ষা জারি রয়েছে। কিন্তু আশঙ্কার বিষয় প্রকাশ করছে স্বাস্থ্য দপ্তরের বিভিন্ন মাধ্যমগুলো।

ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন হসপিটাল বোর্ড অফ ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান ডক্টর ভি কে মোঙ্গা সংবাদসংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, “এবার সংক্রমণ গুণত্তর প্রগতিতে বাড়ছে। প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজারের বেশি হচ্ছে। এটা সত্যিই দেশের পক্ষে খুব খারাপ অবস্থা। এই ছবিটা খুব খারাপ। এটা প্রমাণ করছে ভারতে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে।”

প্রতিদিন যেভাবে রেকর্ড করছে তাতে কিন্তু চিন্তার প্রহর বাড়ছে।গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৮,৯০২ জন। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৫৪৩ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ২৩,৬৭২ জন। দেশে এখন সুস্থতার হার ৬২.৮৬ শতাংশ। আর মৃত্যুহার ২.৪৯ শতাংশ।