অরুণাচল এর প্রকৃতি ও সংস্কৃতি নিয়ে অমিত শাহের টুইট; গাত্রজ্বালা পাকিস্তানের প্রানের বন্ধু চীনের!

0

সমাচার ডেস্ক:অমিত শাহ টুইট করেন তিনি সেখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও সংস্কৃতি নিয়ে মন্তব্য করেন আর তার এই সফর ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ তিনি উল্লেখ করেন-, “অরুণাচল প্রদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অসাধারণ। সেখানকার সংস্কৃতিও উঁচুমানের। আশা করি মুখ্যমন্ত্রী পেমা খাণ্ডুর নেতৃত্বে রাজ্যের অগ্রগতি অব্যাহত থাকবে” তবে এতেই গাত্র জ্বালা বেড়েছে চীনের।

বৃহস্পতিবার চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র গেং শুয়াং বলেন, “বেজিং-এর আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব মানছে না ভারত। দুই দেশের মধ্যে যে রাজনৈতিক সমঝোতা আছে, তাও ধ্বংস করতে চাইছে।, ভারত সীমান্তে তিব্বত অঞ্চল নিয়ে আমাদের অবস্থান স্পষ্ট।” চিন থেকে ভারতের উদ্দেশে আহ্বান জানানো হয়েছে,” সীমান্ত নিয়ে জটিলতা আর বাড়াবেন না। সেখানে যাতে শান্তি ও স্থিতাবস্থা বজায় থাকে, সেই লক্ষে কাজ করুন। আসলে ভারত ও চীনের মধ্যে সার্বভৌমত্ব রক্ষার্থে অরুণাচল প্রদেশ এমন একটি জায়গা বরাবরই বিতরকের তালিকায় রয়েছে।

১৯৮৭ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে পূর্ণ রাজ্যের মর্যাদা পায় অরুণাচল প্রদেশ। সেই দিনটিকে ‘স্টেটহুড ডে’ হিসাবে উদযাপন করা হয় সেই রাজ্যে।