সুশান্তের পর চলে গেলেন বিশিষ্ট অভিনেতা আশুতোষ ভাক্রে , কিছুদিন ধরে তিনিও ছিলেন হতাশার শিকার 

0

সমাচার ডেস্কঃ- মারাঠি অভিনেতা আশুতোষ ভাক্রে ( Aashutosh Bhakre ) মুম্বাইয়ে নিজের বাড়িতে ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন । তিনি মারাঠওয়াদা অঞ্চলের নান্দেদ শহরে থাকতেন। তাঁর বয়স ছিল ৩২ বছর । বুধবার এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, ভাক্রের বাবা-মা যখন বিকেলে গণেশ নগর এলাকার ফ্ল্যাটে এসেছিলেন, তখন তাঁরা অভিনেতার লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান।

ভাকরে মারাঠি অভিনেত্রী ময়ূরী দেশমুখের স্বামী। ভাকরে ‘ভাকর’ ও ‘ইছার থারালা পাক্কার’ ছবিতে কাজ করেছেন। পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন যে অভিনেতা গত কয়েকদিন ধরেই হতাশায় ছিলেন বলে জানা গেছে। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।

এখনও অবধি প্রাপ্ত তথ্য মতে আশুতোষ ভাক্রে গত কয়েকদিন ধরে হতাশায় ভুগছিলেন। একই সঙ্গে কয়েকদিন আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন তিনি। সেই ভিডিওতে তিনি বলেছিলেন , এক ব্যক্তি কেন আত্মহত্যা করে ।

আশুতোষ 2016 সালে অভিনেত্রী ময়ূরী দেশমুখকে বিয়ে করেছিলেন। লকডাউনের কারণে বর্তমানে দুজনেই সছন্দে তাদের বাসায় ছিলেন । প্রতিবেশরা বলেছেন, আশুতোষ এবং ময়ূরীর মধ্যে কোন ঝগড়া , মতবিভেদ ছিলো না । তা সত্ত্বেও আশুতোষ কেন আত্মহত্যা করেছেন তার পিছনে বহু কারণ এখনও রহস্যময় ।

আশুতোষের মৃত্যুর পরে তাঁর সহকর্মীরা শোকাহত। তাঁর ভক্তরা এখনও নিশ্চিত নন যে আশুতোষ তাদের মধ্যে আর নেই । একই সঙ্গে মারাঠির পরে মারাঠি ইন্ডাস্ট্রিতে শোকের ছায়া তৈরি হয়েছে । আশুতোষের পরিবারের রয়েছেন তার স্ত্রী ময়ূরী দেশমুখ, বাবা-মা এবং এক ভাই ।

আপনাকে জানিয়ে রাখি , গত মাসে 14 জুন, বলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত মুম্বাইয়ের নিজের বাড়িতে ফাঁসি দিয়ে প্রাণ দিয়েছিলেন। খবরে বলা হয়েছে, সুশান্তও গত 6 মাস ধরে হতাশায় ছিলেন। তবে সুশান্তের আত্মহত্যার পেছনের আসল কারণ এখনও অবধি প্রকাশিত হয়নি এবং মুম্বই পুলিশ এই মামলায় ধারাবাহিকভাবে তদন্ত করছে। একই সময়ে, পাটনায় অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে সুশান্তের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি এফআইআর নথিভুক্ত করার পরে, এখন বিহার পুলিশের একটি দলও মুম্বাই পৌঁছেছে এবং এই মামলার তদন্ত শুরু করেছে।