পাকিস্তানের পরম বন্ধু তুর্কির সাথে আমির খানের দোস্তি মিটিং গল্প আত্মীয়তা প্রেম ক্ষুব্ধ সিনেমা প্রেমীরা,বয়কটের ডাক

0

সমাচার ডেস্ক: কিছুদিন আগে শাহরুখ খানের বেশ কিছু ছবি ভাইরাল হয়েছিল। ভারতবিরোধী মানুষের সাথে তার ব্যবসায়িক যোগাযোগ এর বিষয়ে প্রতিস্ঠিত না হলেও ছবি ভাইরাল হওয়া ঘিরে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর এবার আমির খানের ওপর আসতে চলেছে সেই খড়গহস্ত অভিযোগ।

বলিউড অভিনেতা আমির খান পরের সিনেমা লাল সিং চাড্ডার শুটিংয়ের জন্য তুর্কি পৌঁছে গেছেন। তুর্কীর সংস্কৃতিক ও পর্যটন মন্ত্রী এ বিষয়ে জানিয়েছেন।কিন্তু হঠাৎ আমির খানের এই আলোচনা-পর্যালোচনা টেবিলে বসা কে ভালো ভাবে দেখছেন না রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহল।

ভারতের আমির খানের পরবর্তি সিনেমা ১৯৯৪ সালের ফরেস্ট গ্যাম্পের রিমেক বলে জানা যাচ্ছে। সিনেমার অর্ধেক শুটিং সম্পূর্ণ হয়েছে এখন বাকি শুটিংয়ের কাজ তুর্কিতে চলছে। তবে যে তুর্কি সব সময় ভারত বিরোধী মন্তব্য করবার জন্য সবচেয়ে এগিয়ে থাকে।

পাকিস্তান বাংলাদেশ থেকে আরম্ভ করে সমস্ত মুসলিম দেশগুলোকে সমর্থন দিয়ে থাকে নিজেদের আত্মশুদ্ধি করবার জন্য। তুর্কির সাথে আমির খানের এত ঘনিষ্ঠ পূর্ণ মেলামেশা বা বন্ধুত্ব কি কারনে? উঠছে প্রশ্ন

আমির খান তুর্কীর রাষ্ট্রপতির বেগমের সাথে সাক্ষাত করেছেন এবং ২ ঘন্টা ধরে উনার সাথে কিছু বিষয়ে আলোচনা করেছেন। আমির খান এমিন এরদোগান এর সাথে ২ ঘন্টা ধরে বৈঠক করেছেন।

যে এরদোগান এর বিরুদ্ধে বারবার উঠেছে ভারত বিরোধী বিভিন্ন কার্যকলাপ এর মন্তব্য এবং পাকিস্তানের হয়ে পঞ্চমুখী প্রশংসার কথা। এই মহিলা সম্পূর্ণ ভারত বিরোধী বলে মনে করা হয়। এই মহিলা ভারতের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার জন্য আন্তর্জাতিক মহলেও কুখ্যাত বলে অভিযোগ রয়েছে।