শারদীয় শুভেচ্ছা হিসাবে বাজারে বাংলাদেশের ৫০০ টন ইলিশ? দৌড়াতে হবে ইলিশ প্রেমিকদের

 বাঙালির মৎস্য প্রীতি আজকের নয়। মাছ বাঙ্গালীর বহু যুগের প্রিয় তাইতো আনন্দ-উৎসবে বারবার এই মাছের উল্লেখ পাওয়া যায়। বিবাহের শুরুতে গায়ে হলুদের তত্ত্ব যায় ছেলের বাড়ি মেয়ের বাড়ি তে মাছ অবশ্যই থাকা চাই।

 তাছাড়া অনেক সময় বিয়ে অন্নপ্রাশন সবক্ষেত্রে খাওয়া-দাওয়ায় মাংসের পদ রান্না হয়। বঙ্গীয় ধনবানরা ইলিশের কদর কতটা করতেন তা সময় জানা যায়। ঠাকুমার খেতেন প্রসাদী মাংস। খেতেন সুস্বাদু ইলিশ। স্বদেশে ও বিদেশে স্বামীজীর ইলিশ প্রীতির খবর কয়েকবার এসে পড়েছে। বিশেষ করে জীবনের শেষ প্রান্তে দেশে ফিরে এসে পূর্ববঙ্গ ভ্রমণের সময় স্টিমারের সমস্ত নাবিকদের ইলিশ মাছ খাওয়ানোর খবর। নিয়ে ইকোনমিস্ট এখনো হিসাব পত্র করছেন হাজার বারো সালের পর থেকে ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশে।এর পর থেকে বৈধভাবে বাংলাদেশি ইলিশ পশ্চিমবঙ্গের আর পাওয়া যায়নি। কয়েক ধাপ এগিয়ে রোববার প্রথম চালান হয় 24টন ইলিশ ভারতে। প্রতি কেজি ইলিশের মূল্য প্রায় 500 টাকা।

দুপুরে বেনাপোল বন্দর হয়ে পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা বাংলাদেশের ইলিশ ঢোকে।শারদীয়ার শুভেচ্ছা হিসেবে 500 টন এর মধ্যে 24 টন এর প্রথম চালান পৌঁছাচ্ছে