ভবিষ্যতের সব থেকে বড় ম্যানুফ্যাকচারিং হাব হতে চলেছে ভারত,টাটার সিদ্ধান্তে নাকের জল চোখের জল এক চিনের

0

সমাচার ডেস্ক : TATA হল ভারতের গর্ব । গোটা ভারতবাসীর ছোটো থেকে বড় সবাই কম বেশি রতন টাটা কে জানে।TATA মনে হলো উদারতার প্রতীক,টাটার নাম শোনা মাত্রই ভারতীয়দের মধ্যে আশা ও উৎসাহের কিরণ জেগে ওঠে।সম্প্রতি টাটা এমন এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে যার ফলে গোটা দেশের মানুষ-এর মনে আশার কিরণ জেগে উঠেছে।

TATA সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতকে ভবিষ্যতের ম্যানুফ্যাকচারিং হাব হতে সাহায্য করবে।সেমিকন্ডাক্টর নির্মানের ক্ষেত্রে বড়ো ইনভেস্টমেন্ট করতে চলেছে টাটা। ফুয়েল প্রেসার সেনসর, ডিজিটাল স্পিডোমিটার, নেভিগেশন ডিসপ্লে ইত্যাদি নির্মাণের উপর জোর দেবে রতন টাটার কোম্পানি। সেমিকন্ডাক্টরের ব্যাবসা করে বার্ষিক মোটা টাকা অর্জন করে চীন। এবার সেই ব্যবসায় চীনকে টক্কর দিতে মাঠে নামছে টাটা।

ইলেকট্রনিক্স জিনিসপত্র তৈরির ক্ষেত্রে চীনের খুব নাম রয়েছে গোটা পৃথিবীতে । 5G টেকনোলজির প্রায় পুরোটাই চীনের অধীনে রয়েছে। ইলেকট্রনিক্স ম্যানুফ্যাকচারিং হোক বা সেমি কন্ডাক্টর নির্মাণ, ৫-জি নেটওয়ার্ক, এই সমস্ত কাজের জন্য পুরো বিশ্বকে ৭০% চীনের উপর নির্ভর করতে হয়।

টাটা গ্রুপের চেয়ারম্যান এন চন্দ্রশেখরন বলেছেন, “পুরো বিশ্বজুড়ে সাপ্লাই চেইন রিব্যালেন্সিং চলছে, এমত অবস্থায় সারা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে পারলে লাভ ভারতেরই হবে। বর্তমানে টাটা গ্রুপ উচ্চ প্রযুক্তির মাধ্যমে ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী নির্মাণের ব্যবসা শুরু করেছে। ভবিষ্যতে যা ১ ট্রিলিয়ন ডিজিডিপি তৈরি করতে সক্ষম হবে, এর দ্বারা কয়েক মিলিয়ন কর্মসংস্থান তৈরি হবে।”চন্দ্রশেখরন আরো বলেন, যখন স্থায়ীত্বের চর্চা হয়, তখন ব্যবসা এমন হওয়া উচিত যার নির্দিষ্ট সময় অনুযায়ী লক্ষ্য থাকবে।